,

সংবাদ শিরোনাম :
«» তসলিমা নাসরিনের ভিসার মেয়াদ তিন মাস বাড়াল ভারত! «» মালয়েশিয়ায় অবৈধদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা «» চট্রগ্রাম রেঞ্জ’র শ্রেষ্ঠ সাব-ইন্সপেক্টর হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন টেকনাফ মডেল থানার এস আই মোঃ বোরহান «» বিচ্ছেদের জন্য জেফ বেজোসকে গুনতে হচ্ছে ৩ হাজার ৮০০ কোটি ডলার «» ২৫ জুলাই ২৭৭টি স্থানীয় সরকারের নির্বাচন «» বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে মিরাজ «» ভিসা বন্ধ থাকা সত্বেও আবুধাবিতে দেশীয় প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু «» মানুষ বহনে সক্ষম চন্দ্রযানের সফল পরীক্ষা «» বিমানবন্দর থেকেই ব্রিটিশ গায়িকাকে ফেরত পাঠাল ইরান «» চকরিয়ায় বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখানে মেয়ের মাকে গলা কেটে হত্যা «» সালমানের সঙ্গে দেড়কোটি টাকার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান সেই জায়রা ওয়াসিমের «» জুলুমের অপরাধ অমার্জনীয় «» প্রয়োজনে যুদ্ধ করব, সৌদিকে কাতারের হুঁশিয়ারি «» কারো কাছে আমরা পানি চাইবো না, নদী খনন করে পানি ধরে রাখা হবে, বললেন প্রধানমন্ত্রী «» রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে আসছেন ৩বাহিনীর প্রধান «» পেরুর ৪৪ নাকি ব্রাজিলের ১২ বছর, আজ রাতে কার অপেক্ষার অবসান হবে? «» মরণোত্তর চক্ষু দান করেছেন সানাই মাহবুব «» আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা হলেন ইনাম আহমেদ চৌধুরী «» টেকনাফে বিস্তীর্ণ পাহাড়ে স্থানীয় ও রোহিঙ্গাদের বসবাস: পাহাড় ধ্বসের আশংকা «» মুরসির মৃত্যু নিয়ে জাতিসংঘের কাছে যেসব দাবি জানালেন এরদোগান «» ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ «» ইয়াবা রোহিঙ্গা বাংলাদেশের অভিশাপ! «» অবশেষে আলোচিত সেই ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেফতার «» ১লাখ ৭০হাজার ইয়াবাসহ লেদার রবিউল র‌্যাব-১৫ এর হাতে আটক «» টেকনাফে ইয়াবা কিনতে গিয়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’নারায়নগঞ্জের রাসেল নিহত «» ঘুষ বন্ধে পুলিশের ইউনিফর্ম থেকে পকেট খুলে নিচ্ছে কেনিয়া সরকার «» এক আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করি না: শেখ হাসিনা «» ১২৫ রানেই অলআউট আফগানিস্তান «» টেকনাফ সমিতি ইউএই’র ঈদ পূণর্মিলনী অনুষ্টিত «» চট্টগ্রাম কমার্স কলেজে ভর্তি হবার সাফল্য অর্জন করেছে টেকনাফের মেধাবী ছাত্র নয়ন

বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে মিরাজ

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন মানুষকে সঠিক পথ প্রদর্শনের জন্য প্রত্যেক যুগেই নবী-রাসুল প্রেরণ করেছেন। তাঁদের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী হলেন আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। তিনি সাইয়্যেদুল মুরসালিন ও খাতামুল আম্বিয়া।

সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ২৩ বছরের নবুয়তি জীবনের অন্যতম অলৌকিক ও তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা হলো এই মিরাজ।পৃথিবীর মধ্যাকর্ষণ শক্তির দোহাই দিয়ে অনেকে নবীজীর মিরাজকে অস্বীকার করেন। তারা গতিবিজ্ঞানের যুক্তি দিয়ে বোঝাতে চান মানুষ জড়পদার্থ পৃথিবীর মধ্যাকর্ষণ তাকে তীব্রভাবে টেনে রাখে; সুতরাং মিরাজের কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞানীরা গতিবিজ্ঞানের সূত্র ধরেই বলেছেন, ‘মহাকাশে প্রতিটি গ্রহেরই নিজস্ব আকর্ষণ শক্তি আছে যারা প্রত্যকেই নিজের দিকে বস্তুকে টানতে থাকে। এ টানাটানির ফলে সূর্য এবং পৃথিবীর মাঝখানে একটি ‘জিরো স্পেস’ আছে যেখানে কোনো আকর্ষণ বিকর্ষণ নেই। অতএব কোনো বস্তু যদি জিরো স্পেসে পৌঁছে তার আর ফিরে আসার সম্ভাবনা নেই।

গতিবিজ্ঞানের মতে পৃথিবী থেকে কোনো বস্তুকে যদি প্রতি সেকেন্ডে মোটামুটি ৭ মেইল বেগে ঊর্ধ্বে নিক্ষেপ করা যায়, তা আর ফিরে আসবে না। আবার পৃথিবী থেকে যত ওপরে বস্তু যাবে তার ওজন তত কমতে থাকেব। পৃথিবীর ১ পাউন্ড ওজন ১২ হাজার মেইল ঊর্ধ্বে ১ আউন্স হয়ে যায়।

বিজ্ঞানীরা হিসাব করে দেখেছেন ঘণ্টায় ২৫ হাজার মেইল বেগে ঊর্ধ্বে ছুটতে পারলে পৃথিবীর গতি থেকে মুক্তি লাভ করা যায়। বিজ্ঞানীরা একে ‘মুক্তগতি’ বলে এ মুক্তগতির ফলেই মানুষের চাঁদে যাওয়া সম্ভব হয়েছে; মঙ্গলে যাই যাই করছে। এসব বিষয়াদি প্রমাণ করছে মিরাজ অবাস্তব কোনো যাত্রা ছিল না।

(10) বার এই নিউজটি পড়া হয়েছে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।