,

সংবাদ শিরোনাম :
«» তসলিমা নাসরিনের ভিসার মেয়াদ তিন মাস বাড়াল ভারত! «» মালয়েশিয়ায় অবৈধদের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা «» চট্রগ্রাম রেঞ্জ’র শ্রেষ্ঠ সাব-ইন্সপেক্টর হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন টেকনাফ মডেল থানার এস আই মোঃ বোরহান «» বিচ্ছেদের জন্য জেফ বেজোসকে গুনতে হচ্ছে ৩ হাজার ৮০০ কোটি ডলার «» ২৫ জুলাই ২৭৭টি স্থানীয় সরকারের নির্বাচন «» বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে মিরাজ «» ভিসা বন্ধ থাকা সত্বেও আবুধাবিতে দেশীয় প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু «» মানুষ বহনে সক্ষম চন্দ্রযানের সফল পরীক্ষা «» বিমানবন্দর থেকেই ব্রিটিশ গায়িকাকে ফেরত পাঠাল ইরান «» চকরিয়ায় বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখানে মেয়ের মাকে গলা কেটে হত্যা «» সালমানের সঙ্গে দেড়কোটি টাকার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান সেই জায়রা ওয়াসিমের «» জুলুমের অপরাধ অমার্জনীয় «» প্রয়োজনে যুদ্ধ করব, সৌদিকে কাতারের হুঁশিয়ারি «» কারো কাছে আমরা পানি চাইবো না, নদী খনন করে পানি ধরে রাখা হবে, বললেন প্রধানমন্ত্রী «» রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে আসছেন ৩বাহিনীর প্রধান «» পেরুর ৪৪ নাকি ব্রাজিলের ১২ বছর, আজ রাতে কার অপেক্ষার অবসান হবে? «» মরণোত্তর চক্ষু দান করেছেন সানাই মাহবুব «» আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা হলেন ইনাম আহমেদ চৌধুরী «» টেকনাফে বিস্তীর্ণ পাহাড়ে স্থানীয় ও রোহিঙ্গাদের বসবাস: পাহাড় ধ্বসের আশংকা «» মুরসির মৃত্যু নিয়ে জাতিসংঘের কাছে যেসব দাবি জানালেন এরদোগান «» ডিআইজি মিজানের সম্পত্তি বাজেয়াপ্তের নির্দেশ «» ইয়াবা রোহিঙ্গা বাংলাদেশের অভিশাপ! «» অবশেষে আলোচিত সেই ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেফতার «» ১লাখ ৭০হাজার ইয়াবাসহ লেদার রবিউল র‌্যাব-১৫ এর হাতে আটক «» টেকনাফে ইয়াবা কিনতে গিয়ে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’নারায়নগঞ্জের রাসেল নিহত «» ঘুষ বন্ধে পুলিশের ইউনিফর্ম থেকে পকেট খুলে নিচ্ছে কেনিয়া সরকার «» এক আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করি না: শেখ হাসিনা «» ১২৫ রানেই অলআউট আফগানিস্তান «» টেকনাফ সমিতি ইউএই’র ঈদ পূণর্মিলনী অনুষ্টিত «» চট্টগ্রাম কমার্স কলেজে ভর্তি হবার সাফল্য অর্জন করেছে টেকনাফের মেধাবী ছাত্র নয়ন

ইয়াবা রোহিঙ্গা বাংলাদেশের অভিশাপ!

এনজিও সুন্দরীদের বিয়ে হচ্ছে না, বিদেশীরা ব্যস্ত যৌন কর্মে,
ইয়াবা রোহিঙ্গা বাংলাদেশের অভিশাপ!
ফরিদুল মোস্তফা খান :
উখিয়া টেকনাফের এনজিওতে কর্মরত সুন্দরী তরুণীদের কারো বিয়ের প্রস্তাব আসছে না ইঙ্গিত দিয়ে অংখ্য অভিভাবক বলছেন, বিদেশীরা টাকা আর বিলাসিতার প্রলোভনে ধ্বংস করে দিচ্ছে সমাজ। তাদের যৌন কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে সহকর্মী চাকুরীজীবি ও ক্যাম্পে অবস্থানরত সুন্দরীরা। সাম্প্রতিক সময়ে বিবিসির অনুসন্ধানেও এই তথ্য উঠে এসেছে। বাদ যাচ্ছে না সংশ্লিষ্ট বিবাহিত নারীরাও। চাকুরীর ক্ষেত্রে কক্সবাজার জেলার যোগ্য প্রার্থীদের বাদ দিয়ে তারা ইচ্ছেমত নিয়োগ ছাটাই করছে প্রতিনিয়ত।
স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে কক্সবাজার, উখিয়া, টেকনাফের ভাড়া বাসায় জোড়া জোড়া রাত কাটাচ্ছে অনেক এনজিও কর্মী। ট্রেনিং এর কথা বলে মাসে মাসে তারা সাগর পাড়ের তারকা মানের হোটেলগুলোতে বসায় রসের মেলা। সেখানে দিনে ট্রেনিং রাতে চলে অনৈতিক কারবার। ফলে বিঁষফোড়া রোহিঙ্গা ও ইয়াবা নিয়ে অতিষ্ট কক্সবাজার বাসীর বেদনা বাড়ছে দিন দিন। তারা কিছুতেই বুঝতে পারছেন না মহান আল্লাহ কখন এই অঞ্চলকে রোহিঙ্গা, ইয়াবা এবং এনজিওমুক্ত করবেন(?)
এ অবস্থায় হতাশ কক্সবাজার বাসী দেশ বাঁচাতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট উচ্চ পর্যায়ে তড়িৎ হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। বলেছেন, ইয়াবা রোহিঙ্গা ও এনজিও শুধু কক্সবাজারের নয় পুরো বাংলাদেশের অভিশাপ। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে প্রতিদিন যে হারে শিশু জন্ম হচ্ছে তা দেশের জন্য অশানি সংকেত। সেখান থেকে দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে মরণ ব্যাধি এইডস।
জানা গেছে, এই পর্যন্ত প্রায় আড়াই হাজার এইচআইভি এইডস পজেটিভ পাওয়া গেছে ক্যাম্পে। তাদের মাদক ব্যবসা, হাট-বাজার নিয়ন্ত্রণ, এলাকায় অধিপত্ত বিস্তার, অবৈধভাবে মোবাইল সীম ব্যবহার, খুন, ধর্ষণ, চুরি ছিনতাই, পুলিশের উপর হামলাসহ হরেক দেশদ্রোহী কর্মকান্ড বেসামাল হয়ে পড়ছে। পরিস্থিতি ক্রমশ: অস্থিতিশীল হয়ে উঠেছে।
এনজিও খপ্পরে পড়ে সংসার ত্যাগী এক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রতিবেদককে জানান, দু’সন্তানের সংসারে খেয়ে না খেয়ে এক সময় তারা বেশ ভালই ছিল। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আইএমও নামে একটি সংস্থার আকর্ষণীয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পেয়ে চাকুরীর জন্য স্বামী স্ত্রী দুজনেই আবেদন করে ইন্টারভিউ দেন। কর্তৃপক্ষ উপযুক্ত যোগ্যতা থাকা সত্বেও তাকে চাকুরী না দিয়ে অল্প শিক্ষিত সুন্দরী স্ত্রীকে অধিক বেতনের চাকুরী দেন। এতে নিজের চাকুরী না হলেও স্ত্রীর চাকুরীতে সংসারে শান্তির প্রত্যাশায় তিনি বেশ আনন্দিত হন। অকারণে কোনদিন রাস্তা না দেখা পর্দাশীল গৃহনীটি মাস দু’য়েক স্বামী সংসার নিয়ে বেশ সুখে দিন কাটালেও হতভাগা স্বামী হাউমাউ করে কান্না করে প্রতিবেদককে বলেন, এখন তার স্ত্রী নিয়ন্ত্রণের বাহিরে। চাকুরীর অজুহাতে সকালে বের হলে ফিরেন রাতে। বসদের সাথে চড়েন বিলাসবহুল গাড়ীতে। মাঝে মধ্যে ট্রেনিং এর কথা বলে একদিন গিয়ে তিন দিনেও আসেন না বাড়ীতে। মাসের শেষে বেতনের টাকা কোথায় জিজ্ঞেসতো দূরের কথা কিছু বললেই ছেঁতে উঠেন। স্বামী সন্তান ভুলে নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত এক সময়ের অতি সাধারণ গৃহীনিটি এখন কথায় কথায় বলেন ইংরেজী। ফেইসবুক, ম্যাসেঞ্জার আর মুঠোফোনে ব্যস্ত সময় কাটান সারাক্ষণ। বেচারা স্বামী এখন পথহারা ভবঘুরে।
তিনি বলছেন, শুধু তার স্ত্রী নয় এনজিওতে কর্মরত প্রায় প্রত্যেকের স্ত্রীর এখন একই অবস্থা। অবিবাহিত যারা আছেন তারাতো অনেক আগেই পেঁকে গেছেন। আল্লাহই জানেন এদের যারা বিয়ে করবেন সেই স্বামীদের কপালের কথা।
ভুক্তভোগীরা বলছেন মাসে যার নূন্যতম ৫ হাজার টাকা পাওয়ার কথা নয়, তাকে ৪০/৫০ হাজার টাকা বেতন দিয়ে বিদেশী এনজিও কর্তারা ভোগ বিলাসে ব্যস্ততা শেষে একদিন স্বদেশে ফিরে গেলেও কি হবে আমাদের মাÑবোনদের ভবিষ্যৎ!
অতি লোভে তারাতো স্বামী, সংসার, পরিবার, পড়ালেখা সবই বাদ দিয়ে নিজেরাই নিজেদের বোঝা হয়ে দাঁড়াবে! সেদিন তারা ফিরে পাবে কি হারানো সময়, সম্ভ্রম আর সম্মান?
অতএব, বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের এখনই ভাবা উচিত। মানব সেবার অজুহাতে এদেশে আসা দাতা সংস্থাগুলো নানা অপকর্মে রোহিঙ্গাদের কেন ইন্দন যোগাচ্ছে? কেনইবা তারা রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে বাঁধা দিচ্ছে? তা আমার বোধগম্য নয়।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনিই যোগ্য দেশনেত্রী। মাদক, রোহিঙ্গা, এনজিওর চেয়ে বড় বড় সমস্যা মোকাবেলা করে বাংলাদেশকে আপনি নিয়ে যাচ্ছেন অনেক উঁচু স্থানে। কাজেই আপনিই পারবেন এই সমস্যা থেকে কক্সবাজার তথা পুরো দেশকে মুক্ত করতে। সময় থাকতেই ব্যবস্থা নিন। কক্সবাজারবাসী আপনার কাছ থেকে সেটাই প্রত্যাশা করেন।

লেখক : প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও প্রকাশক দৈনিক কক্সবাজারবাণী।

(10) বার এই নিউজটি পড়া হয়েছে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।