Teknaf News24:: টেকনাফ নিউজ২৪ এ আপনাকে স্বাগতম
সংবাদ শিরোনাম :
«» আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভে উত্তাল সারাদেশ «» টেকনাফ সড়কে কাভার্ড ভ্যান চাপায় কলেজ ছাত্রী মিনাবাজারের সাকি নিহত «» বিজিবির অভিযানে ঝুঁড়ি থেকে মিলল প্রায় ২২০০০ ইয়াবা «» ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে বেরিয়ে আসছে থলের বিড়াল: দুর্নীতির বিপুল অঙ্কের টাকা থাইল্যান্ডে «» যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর ব্যাংক হিসাব তলব «» কাশ্মীরিদের আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার নিয়ে কোনো আপস নয়: পাক সেনাপ্রধান «» ৮ দিন পর পৃথিবীতে অবতরণ করলেন আরব আমিরাতের মুসলিম নভোচারীরা «» দিনদিন কমছে ফজরের নামাজে মুসল্লির সংখ্যা; উত্তরণের উপায় কী? «» শুক্রবার সূরা কাহাফ তিলাওয়াতে রয়েছে বিশেষ ফজিলত «» ১৯৫৭ থেকে সেবা দিচ্ছে যে টেলিস্কো «» নিজের ধর্ম নিয়ে বক্তব্য দিয়ে বিতর্কে জড়ালেন অমিতাভ «» বিমানের পরিচ্ছন্নতাকর্মীর জুতায় ২ কোটি টাকার স্বর্ণের বার «» ভুটান কোচের দৃষ্টিতে সেরা জামাল «» বাহরাইনে বাড়ছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি, গত ১০ দিনে ৮ বাংলাদেশির মৃত্যু «» আরও ১১ এএসপি বদলি «» যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের নতুন যুগ্মসচিব রেখা রানী বালো «» খালেদা জিয়া কি মুক্তি পাচ্ছেন ? «» সৌদির ৩ ঘাঁটি ও ১৫০ বর্গকিমি. এলাকা দখলে নিয়েছে হুতিরা! «» খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর মনোভাব জানালেন কাদের «» সব ইমাম-মুয়াজ্জিনকে সরকারি বেতন দিতে র‌্যাব মহাপরিচালকের প্রস্তাব «» কক্সবাজারে পেঁয়াজের মূল্য সর্বোচ্চ ৭০ টাকা : জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত «» একটি মহল রোহিঙ্গাদের নিয়ে অশুভ খেলায় মেতে উঠেছে «» চতুর্দিক থেকে বিপদ আসছে, সতর্ক থাকুন: মির্জা ফখরুল «» বসবাসের অযোগ্য শহরের তালিকায় তৃতীয় ঢাকা «» কাশ্মীর নিয়ে ইমরান খানের সঙ্গে সৌদি-আমিরাত পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক «» হঠাৎ বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল ভারতের পাঞ্জাব, নিহত ২১ «» সাংবাদিক জসিম উদ্দিন টিপুর পিতা আর নেই «» নাজিরপাড়া থেকে আটককৃত বিজিপির ৪ সদস্যকে মিয়ানমারে হস্তান্তর «» রোহিঙ্গা সমাবেশে সহযোগিতাকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে : বিভাগীয় কমিশনার «» রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় শেখ হাসিনার প্রশংসায় সৌদি নৌবাহিনীর প্রধান

উখিয়ায় ২১ ঘন্টা বিদ্যুৎ : টেকনাফে ১৩ ঘন্টা লোডশেডিং কেন?

মোঃ আশেক উল্লাহ ফারুকী :: টেকনাফ সোলার বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ২০ মেগাওয়াট জাতীয় গ্রীড লাইনে সংযোজন হবার পরও কেন টেকনাফে লোডশেডিং মাত্রা অব্যাহত থাকবে, এ নিয়ে সচেতন বিদ্যুৎ গ্রাহকের মধ্যে নানা প্রশ্ন ও অভিযোগ উঠেছে। টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিস সূত্রে জানা যায়, টেকনাফে প্রায় ৩০ হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক রয়েছে। এর মধ্যে বিশেষ বিশেষ এলাকা বিদ্যুৎ সুবিধা এবং পরিপূর্ণ গ্রাহক সেবা পেলে ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রাহকেরা সেই ন্যুনতম সুবিধা পাচ্ছেনা বলে অভিযোগ উঠেছে। অথচ গ্রাহকের উপর চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে, ভৌতিক বিল। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, প্রায় ৭০% শতাংশ বিদ্যুৎ গ্রাহক লোড শেডিং এর যাত্রাকলে এবং ভৌতিক বিলের আক্রান্তের শিকার। বাহারছড়া, হোয়াইক্যং ও সাবরাং শাহপরীরদ্বীপ ইউনিয়নের উপকূলীয় ও পাহাড়ী এলাকায় বিদ্যুৎ বিতরণের গ্রাহকেরা বৈশম্যের শিকার হচ্ছেন। স্থানীয় পত্রিকান্তরে এবং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ও বিভিন্ন অনলাইনে প্রকাশিত হয়েছে, পার্শ্ববর্তী উপজেলা উখিয়া যদি ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ সুবিধা পেয়ে থাকে, তাহলে টেকনাফ কেন? এ সুবিধা পাবেনা ? সরকার ২০১৮ সালের মধ্যে প্রত্যেক ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ সুবিধা এবং লোডশেডিং মাত্রা থেকে অবসান পাবে মর্মে অতীতে ঘো ষানা দিয়েছিল। তারই আলোকে উখিয়া টেকনাফে ৩৩/১১ কেভির বিদ্যুৎ উন্নয়ন কাজ হাতে নেয় এবং এতে কয়েক মাস সময়ে অসময়ে টেকনাফে বিদ্যুৎ সরবারহ বন্ধ ছিল। ৩৩/১১ কেভির উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হলেও বিদ্যুৎ সরবারহ তেমন উন্নয়ন এবং সুবিধা থেকে বঞ্চিত গ্রাহকেরা। টেকনাফ পল্লী বিদ্যুৎ সূত্রে জানা যায়, গোটা টেকনাফে বিদ্যুতের চাহিদা ১৪ মেগাওয়াট। তার স্থলে আছে মাত্র ৯ মেগাওয়াট। উখিয়া টেকনাফ সীমান্ত জনপদ রোহিঙ্গা অধ্যাশিত চোরাচালানসহ নানা অপরাধ প্রবণ এলাকা। এখানে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সুবিধা পেতে টেকনাফের হ্নীলা লেদাস্থ নাফ নদীর তীরে বেসরকারী ভাবে বিশাল সোলার বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি স্থাপিত হয়। এখান থেকে উৎপাদিত ২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রীড লাইনে সংযোজনের পর থেকে এ দুই সীমান্ত উপজেলায় লোড শেডিং থাকবেনা এবং প্রত্যেক গ্রাহক সমানভাবে বিদ্যুৎ সুবিধা পাবে মর্মে অতীতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঘোষনা দিয়েছিল। এটি এখন কথা মালার ন্যায় পরিনত হয়ে বাস্তবে এর সুফল পাচ্ছেনা গ্রহকেরা। এখন রমজান মাস এবং তীব্র তাপদাহ চলছে। প্রত্যান্ত অঞ্চলের গ্রহকেরা তারাবীর নামাজ পড়তে হিমছিম খাচ্ছে। ৩৩/১১ কেভির সংস্কার এবং হ্নীলায় সোলার বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপিতের নামে এতো আয়োজন করার পরও কেন? টেকনাফে গ্রাহকদের চাহিদা মতো বিদ্যুৎ সরবারহ অক্ষম এবং অবিরত লোড শেডিং সংক্রান্ত বিষয়ে অনুসন্ধানে জানা যায়, গ্রাহকদের ধার্য্যকৃত চাহিদা বিদ্যুৎ টমটম গাড়ী ও অটোরিক্সা পেটেই চলে যাচ্ছে। যার কারণে বিদ্যুৎ সমস্যা লাগাতর রয়েছে। উল্লেখ্য টেকনাফে আইন শৃংখলা বাহিনী মাদক ব্যবসায়ীদের ধরপাকড় ও বন্দোকযুদ্ধ চলমান থাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা বাঁচতে টমটম গাড়ী ও অটোরিক্সা ব্যবসা হাতে নেয়ায় এর সংখ্যা ক্রমশঃ বাড়ছে। এ প্রসঙ্গে টেকনাফ ডিজিএম আবুল নোমিক বলেন, টেকনাফে বিদ্যুৎতের লো-বোল্ড কমাতে হলে একটা গ্রিড (পিডিসি) স্থাপন করতে হবে। নচেৎ এ সমস্যা থেকেই যাবে।

(10) বার এই নিউজটি পড়া হয়েছে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।