,

সংবাদ শিরোনাম :
«» চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে সৌদিয়া-মাইক্রো সংঘর্ষে নিহত 8 «» ভেজাল রোধে হবে খাবারের পরীক্ষাগার: প্রধানমন্ত্রী «» জেলা ও উপজেলায় মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপনে সমঝোতা স্মারক সই «» আত্মসমর্পণ প্রক্রিয়ার মধ্যেও বন্দুকযুদ্ধ «» ১৬ ফেব্রুয়ারি ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ «» নারী কণ্ঠে গান গেয়ে চমক দেখালেন শাবনূর ভক্ত মিজান «» ইসলাম প্রেমে হেরে গেল ইসরায়েলের ১০০ মিলিয়ন ডলার «» প্রবাসী কর্মী নির্যাতন ঘটনায় আইনি পদক্ষেপ মালয়েশিয়ার «» সৌদি কারাগারে চুমু দিতে বাধ্য করা হয় নারী বন্দিদের «» তামাশার নির্বাচনের পর চা-চক্র বিবেকহীন আনন্দ: রুহুল কবির রিজভী «» চা-চক্রের নিমন্ত্রণে না গিয়ে বিএনপি আলোচনার সুযোগ হারিয়েছে: হানিফ «» তাবলিগ জামাতের বিভেদ মিটে গেছে – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী «» আফগান যুদ্ধের ইতি টানতে রূপরেখা তৈরি মার্কিন-তালেবান «» মানবপাচার প্রতিরোধে সকলের সচেতন হওয়া উচিৎ :উখিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের যুগ্নসচিব «» বেতনের আওতায় নারী ফুটবলাররা «» উখিয়ায় মেজবানের রান্না করা মাংসে ‘আল্লাহু’ লেখা «» এনজিওতে স্থানীয়দের অগ্রাধিকার দেয়ার নির্দেশ জেলা প্রশাসক’র «» আরও ৩১ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে পাঠাতে চায় ভারত «» সৌদি গণমাধ্যমে বাংলাদেশের চা «» সোনার বাংলা গড়তে সবার সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী «» ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নামে বেনামের সম্পদ জব্দ ও শাস্তি নিশ্চিতের দাবী স্বচেতন মহলের «» জাতীয় পার্টি শক্ত বিরোধীদলের ভুমিকা রাখবে: রাঙ্গা «» মিস কালচার ওয়ার্ল্ড মুকুট জিতলেন প্রিয়তা «» সাগরপথে মানবপাচার বন্ধ হচ্ছে না , চক্রের টার্গেট এবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প «» সুশাসন নিশ্চিত করাই নতুন সরকারের প্রধান চ্যালেঞ্জ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী «» সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কারও অনুমতি নেবে না তুরস্ক: এরদোগান «» তাবলিগের সংকট নিরসনে দেওবন্দে যাচ্ছেন ধর্মপ্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দল «» এ সময়ের সবচেয়ে দামি ফুটবলার কে? «» টেকনাফ ৫০ শয্যা হাসপাতালে একযোগে ১২ জন নার্স যোগদান «» যে কারণে সিরিয়া থেকে ইরানি সেনা সরাতে চায় ইসরাইল

আফগান যুদ্ধের ইতি টানতে রূপরেখা তৈরি মার্কিন-তালেবান

সতেরো বছর ধরে চলা আফগান যুদ্ধের অবসানে রূপরেখা তৈরিতে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র ও তালেবান। সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের এক বিশেষ দূতের বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এমন তথ্য জানিয়েছে।

তালেবানের সঙ্গে ছয় দিনের শান্তি আলোচনা শেষে নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মার্কিন দূত জালমি খলিলজাদ বলেন, আমরা চুক্তির কাঠামোর একটি খসড়া তৈরি করেছি। পূর্ণাঙ্গ চুক্তিতে রূপ দিতে এটিতে আরও অনেক তথ্য যোগ করতে হবে।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠী ও ব্যক্তিগের প্লাটফর্ম হওয়া থেকে আফগানিস্তানকে সুরক্ষা দিতে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেবে তালেবান। বিদ্রোহী গোষ্ঠীটি এমন প্রতিশ্রুতিই দিয়েছে।

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের আগে একটি যুদ্ধবিরতি কিংবা কাবুলে মার্কিন-সমর্থিত সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসার দাবিতে তালেবান সম্মতি দিয়েছে। যদিও এ সম্মত হওয়ার ব্যাপারে তাদের কাছ থেকে কোনো নিদর্শন পাওয়া যায়নি।

ওয়াশিংটনের থিংকট্যাংক মধ্যপ্রাচ্য ইনস্টিটিউটের ফেলো আহমাদ মাজিদার বলেন, দোহা আলোচনার অগ্রগতি এ পর্যন্ত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হয়েছে। কিন্তু একটি চূড়ান্ত চুক্তির নিশ্চয়তা পেতে অনেক দূর যেতে হবে।

আফগান সরকারের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, কাতারের আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি হয়েছে। কিন্তু যুদ্ধবিরতির সময় নির্ধারণে আরও আলোচনায় পৌঁছাতে হবে। দুপক্ষের মধ্যে আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারির বৈঠকে এটিই হবে মূল ইস্যু।

(10) বার এই নিউজটি পড়া হয়েছে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।