,

সংবাদ শিরোনাম :
«» ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা ঠেকাতে ৩২ উপজেলায় ইসির কমিটি «» হোয়াইক্যংয়ের খলিল ইয়াবাসহ র‌্যাবের হাতে আটক «» উনছিপ্রাং স্কুলে একলাবের সভা অনুষ্টিতঃ মানবাধিকার রক্ষায় সুশীল সমাজকে এগিয়ে আসার আহ্বান «» টেকনাফ উপজেলা নির্বাচন : চেয়ারম্যান আলম ভাইস-চেয়ারম্যান ফেরদৌস ও তাহেরা নির্বাচিত «» বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক বিশ্বে একটি রোল মডেল: প্রধানমন্ত্রী «» বিক্ষোভে উত্তাল ঢাবি ক্যাম্পাস:সিলযুক্ত ব্যাটল বাক্স উদ্ধার «» টেকনাফে বিজিবি’র অভিযানে ৮ লাখ ৪০ হাজার ইয়াবা জব্দ «» পুলিশের বন্দুকযুদ্ধে মহেষখালিয়া পাড়ার আবদুর রহমান নিহত «» চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে সৌদিয়া-মাইক্রো সংঘর্ষে নিহত 8 «» ভেজাল রোধে হবে খাবারের পরীক্ষাগার: প্রধানমন্ত্রী «» জেলা ও উপজেলায় মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র স্থাপনে সমঝোতা স্মারক সই «» আত্মসমর্পণ প্রক্রিয়ার মধ্যেও বন্দুকযুদ্ধ «» ১৬ ফেব্রুয়ারি ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ «» নারী কণ্ঠে গান গেয়ে চমক দেখালেন শাবনূর ভক্ত মিজান «» ইসলাম প্রেমে হেরে গেল ইসরায়েলের ১০০ মিলিয়ন ডলার «» প্রবাসী কর্মী নির্যাতন ঘটনায় আইনি পদক্ষেপ মালয়েশিয়ার «» সৌদি কারাগারে চুমু দিতে বাধ্য করা হয় নারী বন্দিদের «» তামাশার নির্বাচনের পর চা-চক্র বিবেকহীন আনন্দ: রুহুল কবির রিজভী «» চা-চক্রের নিমন্ত্রণে না গিয়ে বিএনপি আলোচনার সুযোগ হারিয়েছে: হানিফ «» তাবলিগ জামাতের বিভেদ মিটে গেছে – স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী «» আফগান যুদ্ধের ইতি টানতে রূপরেখা তৈরি মার্কিন-তালেবান «» মানবপাচার প্রতিরোধে সকলের সচেতন হওয়া উচিৎ :উখিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের যুগ্নসচিব «» বেতনের আওতায় নারী ফুটবলাররা «» উখিয়ায় মেজবানের রান্না করা মাংসে ‘আল্লাহু’ লেখা «» এনজিওতে স্থানীয়দের অগ্রাধিকার দেয়ার নির্দেশ জেলা প্রশাসক’র «» আরও ৩১ রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে পাঠাতে চায় ভারত «» সৌদি গণমাধ্যমে বাংলাদেশের চা «» সোনার বাংলা গড়তে সবার সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী «» ইয়াবা ব্যবসায়ীদের নামে বেনামের সম্পদ জব্দ ও শাস্তি নিশ্চিতের দাবী স্বচেতন মহলের «» জাতীয় পার্টি শক্ত বিরোধীদলের ভুমিকা রাখবে: রাঙ্গা

সংসদে বিল উত্থাপন: ইয়াবা-হেরোইন সেবন ও বহনের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

টেকনাফ নিউজ২৪ ডেস্ক : অ্যামফিটামিন বা ইয়াবা, শিশা, কোকেন, হেরোইন ও পেথিডিন জাতীয় মাদকের ব্যবহার, সেবন, বহন, আমদানি-রপ্তানি বা বাজারজাত করার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড—এই বিধান রেখে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বিল ২০১৮ সংসদে উত্থাপন করা হয়েছে। আজ সোমবার সংসদের বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বিলটি উত্থাপন করেন।
পরে বিলটি দুই দিনের মধ্যে পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়।

প্রস্তাবিত আইনের ৯ ধারায় বলা আছে, অ্যালকোহল ব্যতীত অন্যান্য মাদকদ্রব্যের উৎপাদন বা প্রক্রিয়াজাতকরণে ব্যবহার হয় এমন কোনো দ্রব্য বা উদ্ভিদের চাষাবাদ, উৎপাদন, বহন, পরিবহন বা আমদানি-রপ্তানি, সরবরাহ, বিপণন, গুদামজাত, সেবন বা ব্যবহার, অর্থ বিনিয়োগ বা পৃষ্ঠপোষকতা করা যাবে না। বিলের ৩৬ ধারায় বলা আছে, কোনো ব্যক্তি আইনের এই বিধান লঙ্ঘন করলে তিনি সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ডে বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

বিলের ১১ ধারায় বলা হয়েছে, অনুমতি (পারমিট) ব্যতীত কোনো ব্যক্তি অ্যালকোহল পান করতে পারবেন না। চিকিৎসার প্রয়োজনে সিভিল সার্জন বা সরকারি মেডিকেল কলেজের কমপক্ষে সহযোগী অধ্যাপকের ব্যবস্থাপত্র ব্যতীত কোনো মুসলমানকে অ্যালকোহল পানের পারমিট দেওয়া যাবে না। তবে মুচি, মেথর, ডোম, চা শ্রমিক ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর তাড়ি ও পঁচুই এবং পার্বত্য জেলা বা অন্যান্য অঞ্চলের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ঐতিহ্যগতভাবে তৈরি করা মদ পান করার ক্ষেত্রে এই বিধান প্রযোজ্য হবে না।

২৪ ধারায় বলা আছে, তদন্ত কর্মকর্তার যদি এই মর্মে সন্দেহ হয় যে, কোনো ব্যক্তি শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে মাদকদ্রব্য লুকিয়ে রেখেছেন। সেই ক্ষেত্রে ওই কর্মকর্তা সন্দেহজনক ব্যক্তির শরীরে এক্স-রে, আল্ট্রাসনোগ্রাম, অ্যান্ডোসকপি এবং রক্ত ও মলমূত্র পরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।

৩৩ ধারায় বলা আছে, কোনো ব্যক্তি মাদকদ্রব্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত থেকে অবৈধ অর্থ ও সম্পদ সংগ্রহে লিপ্ত রয়েছেন; মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তার এমন সন্দেহ হলে তিনি সন্দেহজনক ব্যক্তির ব্যাংক হিসাব বা আয়কর নথি পরীক্ষার প্রয়োজনে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কিত বিবৃতিতে মন্ত্রী বলেন, সম্প্রতি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ব্যাপকভাবে বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য ও মাদকদ্রব্যের উপজাতের অপব্যবহার হচ্ছে। এ সব দ্রব্য কোনো কোনোটি জীবন বিধ্বংসী। ইয়াবার আগ্রাসন ভয়াবহভাবে বেড়েছে। ইয়াবা ব্যবসার জন্য শাস্তির মেয়াদ বাড়ানো প্রয়োজন। ‘শিশা বার’-এর অনিয়ন্ত্রিত কর্মকাণ্ড সার্বিক আইনশৃঙ্খলার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। এ ছাড়া মাদক সংক্রান্ত মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির স্বার্থে মোবাইল কোর্টের এখতিয়ার আরও সম্প্রসারণ প্রয়োজন। মাদক ব্যবসায়ীর পাশাপাশি এই ব্যবসার পৃষ্ঠপোষক ও অর্থলগ্নিকারীদেরও আইনের আওতায় আনা সময়ের দাবি। তাই মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন থেকে দেশের জনগণকে রক্ষা করতেই এই বিলটি আনা হয়েছে।

(10) বার এই নিউজটি পড়া হয়েছে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।